ক্রেডিট কার্ড পেমেন্ট সাহায্য নিয়ে সবকিছু

দেশের বাইরের ভার্সিটিগুলাতে অ্যাপ্লাই করতে যাওয়া শিক্ষার্থীদের জন্য, অনলাইন পেমেন্টের ব্যাপারটা বেশ মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। GRE, TOEFL পরীক্ষা দেয়া থেকে শুরু করে ভার্সিটির অ্যাপ্লিকেশান ফি-গুলো অনলাইনে দিতে হয়, যা অনেক সময়ই “কই যাই, কই যাই” পরিস্থিতির সৃষ্টি করে।

তিন উপায়ে আপনি কাজ সারতে পারেন।

পরিচিত কারো ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড দিয়ে

আপনার পরিচিত কারো কাছে International Credit Card থাকলে ওদেরকে আপনার প্রয়োজনীয় ডিটেইলস (যেমন, GRE এর ক্ষেত্রে GRE ID, Password, Desired date to take the test, your full name, এগুলো) দিন। এরপর তাকে বলুন, কাজটা করে দিতে। এরপর তাকে টাকা কীভাবে পাঠাবেন, সেটা নিজেরা ঠিক করুন।

সুবিধাঃ
সবচেয়ে কম খরচে করতে পারবেন।

সমস্যাঃ
সবার এমন পরিচিত কেউ থাকে না।

Credit Card Aid প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে

ক্রেডিট কার্ড এইড দেয়, এমন কোনো সেন্টার বা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে দিতে পারেন। We, in NexTop-USA, do it too. সেক্ষেত্রে তাদেরকে ওপরে বর্ণিত প্রয়োজনীয় ডিটেইলস দিতে হবে, এবং ফী দিতে হবে।

সুবিধাঃ
এটা সবচেয়ে কম ঝামেলার। ডিটেইলস আর ফী দিয়ে এলেই হলো।

সমস্যাঃ
এক্ষেত্রে তাদেরকে একটা সার্ভিস চার্জ দিতে হয়। একেক প্রতিষ্ঠান একেক রকম সার্ভিস চার্জ রাখে।

DBBL এর Visa Virtual Credit Card দিয়ে

ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড একটা নতুন সুযোগ নিয়ে এসেছে শিক্ষার্থীদের অনলাইনে পেমেন্টের জন্য। এটা শুধুমাত্র এডুকেশন পারপাসে ব্যবহার করার জন্য, অনলাইনে কেনাকাটা করা যাবেনা এটা দিয়ে।

সুবিধাঃ
অন্যের দয়ার উপর নির্ভর না করে নিজেই ঘরে বসে অতিরিক্ত কোনো ফি না দিয়ে Online Payment গুলো করা যায়। সার্ভিস চার্জ খুবই সামান্য (more expensive than 1, cheaper than 2)

সমস্যাঃ
প্রসেসিং পুরোটাই নিজেকে করতে হবে।

তবে ঝামেলার কিছু নেই। সবার সুবিধার্থে পুরো প্রসিডিউরটাকে নিচে তুলে ধরলাম।

কিভাবে Visa Virtual Credit Card ওপেন করা যায়?

ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড এর যেকোন শাখাতে Visa Virtual Credit Card ওপেন করা যায়। এই জন্য প্রথমে DBBL এ একটা অ্যাকাউন্ট ওপেন করতে হয়, তারপর Visa Virtual Credit Card ওপেন করতে হবে। কারো যদি আগে থেকেই অ্যাকাউন্ট থাকে, তা হলে আর লাগবে না।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও নির্দেশনা

DBBL এ অ্যাকাউন্ট ওপেন করার জন্যঃ

১. নিজের দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি
২. জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা স্টুডেন্ট আইডি কার্ডের ফটোকপি
৩. নমিনির এক কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি
৪. নমিনির জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি

Visa Virtual Credit Card ওপেন করার জন্যঃ

১. নিজের এক কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি
২. পাসপোর্টের ফটোকপি
৩. অনলাইন পেমেন্টের প্রমাণপত্র (উদাহরণস্বরূপ: GRE পরীক্ষার ক্ষেত্রে, ETS এর যেই পেইজটা তে GRE জন্য পেমেন্টের পরিমাণটা লিখা থাকে, ঐটার একটা প্রিন্টেড কপি নিয়ে যেতে হবে)

নির্দেশনা

DBBL এ সাধারণ ভাবে একটা স্টুডেন্ট অ্যাকাউন্ট বা সেভিংস অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। তারপর Visa Virtual Credit Card ওপেন করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও টাকা দিতে হবে। এখানে উল্লেখ্য যে, Visa Virtual Credit Card এর জন্য প্রয়োজনীয় টাকা Credit Card এর জন্য বিশেষ একটা স্লিপে জমা দিতে হয়, এবং এর জন্য ১০০ টাকা অতিরিক্ত চার্জ ও প্রদান করতে হয়। ফর্ম পূরণ করে টাকা জমা দেয়ার পর আপনি আপনার Visa Virtual Credit Card টি হাতে পাবেন। এটি রাত ৮ টার পর চালু হয়ে যায়।

Advertisements
This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s