তৃতীয় ধাপ : অন্নান্ন এপ্লিকেশন মেটেরিয়াল সংগ্রহ ও এপ্লাই

ইউনিভার্সিটি খুঁজুনঃ

ইতোমধ্যে আপনি GRE and TOEFL এর জন্য প্রিপারেশন শুরু করে দিয়েছেন। তবে পাশাপাশি চালিয়ে যান ভবিষ্যৎ ভার্সিটির জন্য সার্চ, দ্যা খোঁজ……

 

ইন্টারনেটে সার্চ করলে বিষয়ভিত্তিক ভার্সিটির লিস্ট পাবেন, যেমন – ফার্মেসীর জন্য Pharmacy School Ranking. সেপ্টেম্বর সেশন ধরতে হলে সাধারণত ফেব্রুয়ারি-মার্চের মধ্যে এপ্লাই করে ফেলতে হয়। যারা আরো দেরি করে এপ্লাই করতে চান, তারাLate Deadlines থেকে দেখে নিন কোন কোন স্কুলে এখনো এপ্লাই করার সময় আছে। ভার্সিটি সিলেক্ট করতে হলে কি কি জিনিস মাথায় রাখতে হবে, তার ডিটেইলস পাবেন এই নোটে-University Selection Procedure.

 

প্রফেসরদের ইমেইল করুনঃ

ভার্সিটি সিলেক্ট করার অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে আপনার কাংক্ষিত ডিপার্টমেন্টের ফ্যাকাল্টি মেম্বারদের সাথে (অর্থাৎ, আপনার সম্ভাব্য সুপারভাইজারদের সাথে) যোগাযোগ করুন। ইমেইল করার সময় কী কী মাথায় রাখতে হবে সে ব্যাপারগুলো এবং প্রথম ইমেইলের স্যাম্পল দেখুন এখানে, All About emailing faculty members. পড়ুন আরো কিছু টিপস তাদেরকে নক করার ব্যাপারে Tips to knock professors নোটে। তাকে যদি CV পাঠাতে চান, তাহলে CV Format পোস্টে নিজের তথ্য বসিয়ে বানিয়ে নিন নিজের CV.

 

এপ্লাই করুনঃ

আবার চোখ বুলিয়ে নিন শুরুর দিকে পড়া একটি নোটের ওপর, The Ultimate Check-list for applying. আগেরবার পড়েছিলেন overall ধারণা পাওয়ার জন্য, এবার পড়ুন একটা একটা করে ধরে টিক চিহ্ন দেয়ার জন্য। Application Procedure নিয়ে কোন সওয়াল থাকলে পড়ুন FAQ-Application Procedure.

 

Online application, SOP, LOR, Resume, Transcript:

ভার্সিটির ওয়েবসাইটে গিয়ে Online Application পূরণ করে ফেলুন। অধিকাংশ ক্ষেত্রে এই একাউন্টেই মাস্টার্স বা পিএইচডিতে কি নিয়ে কাজ করতে চান, সেটা নিয়ে একটা রচনা (Statement of Purpose-SOP) লিখে জমা দিতে হয়। অন্যান্য ক্ষেত্রে লিখে প্রিন্ট করে FedEx বা DHL এ করে পাঠাতে হয়। সম্ভাব্য ভার্সিটি অথবা সুপারভাইজার সিলেকশন যেহেতু হয়ে গেছে, সেই রচনাটা লিখে ফেলুন। All About SOP থেকে দেখে নিন step-by-step guide to write one. এখানে আছে আরো একটা স্যাম্পল, Sample SOP. এখানে দেখুন, আরো কিছু টিপস, Tips for SOP. রিকমেন্ডেশন লেটার (LOR) কোন কোন স্যারদের কাছ থেকে নেবেন, সেই স্যারদের কনট্যাক্ট ইনফর্মেশনও অনেক সময় ঐ অনলাইন একাউন্টেই দিতে হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে FedEx বা DHL এ করে পাঠাতে হয়। এখানে দেখুন LOR Samples. এই একাউন্টে CV-ও আপলোড করতে হয় সাধারণত, এজন্য আপনাকে আগেই অবশ্য Résumé Format দেয়া হয়েছে।

 

ভার্সিটি সিলেক্ট করতে গিয়ে অনেকে (বিশেষ করে health science এর ছাত্র-ছাত্রীরা) requirement হিসেবে দেখেছেন যে অনার্সের ট্রান্সক্রিপ্ট ওরা ডিরেক্টলি চায়না, evaluated transcript চায়। WES Transcript Evaluation -এ এই ব্যাপারে জানুন বিস্তারিত।

 

পছন্দের ইউনিভার্সিটিতে পাঠিয়ে দিন আপনার GRE or TOEFL স্কোর। All about GRE or TOEFL পোস্টগুলো পড়ে আপনি জেনে গেছেন, একবার পরীক্ষা দিলে চারটা ভার্সিটিতে স্কোর ফ্রি পাঠানো যায়। এর বেশি ইউনিভার্সিটিতে এপ্লাই করতে চাইলে সেখানে আলাদা করে স্কোর পাঠাতে হবে। Make sure you do that….. স্কোর পাঠাতে, এমনকি রেজিস্ট্রেশন করতে, এপ্লিকেশন ফি দিতে আপনার লাগবে ক্রেডিট কার্ডের সহায়তা। সেটা কিভাবে এরেঞ্জ করবেন, তা দেখুন Credir Card Aid থেকে।

 

Application fee submit করার মাধ্যমে এই ধাপ শেষ হবে।

Advertisements
This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s